ঢাকা ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ | বেটা ভার্সন

আড্ডা জীবনের গুরুত্বপূর্ণ অংশ

রহমান মৃধা, লেখক: সাবেক পরিচালক, ফাইজার, সুইডেন
আড্ডা জীবনের গুরুত্বপূর্ণ অংশ

বাংলাদেশে আড্ডা একটি সামাজিক ও সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য যা মানুষের দৈনন্দিন জীবনের গুরুত্বপূর্ণ অংশ। এটি শুধুমাত্র বিনোদনের মাধ্যম নয়, বরং এর মাধ্যমে সমাধান করা হয় বহু সামাজিক ও ব্যক্তিগত সমস্যা। বাংলাদেশের প্রতিটি এলাকার চায়ের দোকান, বারান্দা, বা পাড়ার মোড়ে আড্ডার মধুর সুর ধ্বনিত হয়। আড্ডার মাধ্যমে মানুষের মধ্যে গড়ে ওঠে নিবিড় সম্পর্ক ও পারস্পরিক সহানুভূতি।

অন্যদিকে, ইউরোপে আড্ডার এই ধারা তেমন প্রচলিত নয়। ইউরোপীয় সমাজে সামাজিক মেলামেশা হয় পরিকল্পিত ও সংক্ষিপ্ত আকারে। সেখানে মানুষের জীবনযাত্রা ব্যস্ত ও নিয়মশৃঙ্খলাবদ্ধ। একত্রিত হওয়ার জন্য প্রয়োজন হয় নির্দিষ্ট আয়োজন ও নির্ধারিত সময়। কথোপকথন সেখানে সীমিত ও নির্দিষ্ট লক্ষ্যভিত্তিক। এই সংস্কৃতিগত পার্থক্যের কারণে ইউরোপে আড্ডার অভাব লক্ষ্য করা যায়।

বাংলাদেশে আড্ডার মাধ্যমে অনেক সমস্যার সমাধান করা হয়। আড্ডায় অংশগ্রহণকারীরা তাদের জীবনের নানা সমস্যার কথা তুলে ধরে এবং সেখান থেকেই উঠে আসে নানা পরামর্শ ও সমাধান। যেমন, একজন ব্যবসায়ী তার ব্যবসায়িক সমস্যার কথা আড্ডায় আলোচনা করলে অন্যরা তাকে পরামর্শ দিতে পারে। এমনকি পারিবারিক সমস্যা বা ব্যক্তিগত মানসিক চাপও আড্ডায় আলোচনা করে সমাধান করা সম্ভব। আড্ডার একটি গুরুত্বপূর্ণ দিক হলো এটি যেন দুর্নীতি মুক্ত থাকে। ছোটবেলার আড্ডার কথা মনে পড়ে, যখন আড্ডায় ছিল ভালোবাসা, বিশ্বাস, সৌহার্দ্য এবং পারস্পরিক শ্রদ্ধা। সেখানে ছিল না অশ্লীলতা, মাদকাসক্তি, কিংবা ভেদাভেদ। সেই আড্ডাগুলো ছিল প্রকৃত সমাজের প্রতিচ্ছবি। কিন্তু বর্তমান সময়ে আড্ডার গুণগত মান নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়, কারণ কিছু ক্ষেত্রে আড্ডায় মদ, গাঁজা এবং অশ্লীলতার প্রবণতা দেখা যায়। সারাদিন পুঁথিগত বিদ্যার মধ্যে আবদ্ধ না থেকে বন্ধু-বান্ধবী মিলে উন্মুক্ত খোলা আকাশের নিচে প্রাণ ভরে আড্ডা দিন। দেখবেন স্কুল-কলেজের জেলখানার চেয়ে আড্ডাজীবন কত সুন্দর। আড্ডা যেন আমাদের উজাড় করে দেয় এবং আমাদের বেকুল করে তোলে, আড্ডার মাধ্যমে যেন আমরা বিনিময় এবং বিনিয়োগ করতে শিখি। আমাদের কাছে যেন মনে হয়, ‘তুমি ছিলে আমার আড্ডায় প্রথম কন্ট্রিবিউটর।’ সেই আড্ডার দিনগুলো যেন আজীবন মনে পড়ে এবং যেন মনে থাকে। একবার একজন ভদ্রলোক বলেছিলেন, এআই (আর্টিফিসিয়াল ইন্টেলিজেন্স) সবকিছু পারলেও অংকের সমাধান সঠিকভাবে করতে পারবে না। কিন্তু বিষয়টি আসলে তা নয়। অঙ্কের মাধ্যমে বাস্তব জীবনের অনেক সমস্যা সমাধান করা সম্ভব। স্মার্ট মানুষরা অঙ্ককে ব্যবহার করে তাদের জীবনের নানা সমস্যা সমাধান করেন, যদিও তারা হয়তো সুন্দর করে থিওরি সাজিয়ে অঙ্কের ভাষা বলতে বা বোঝাতে পারেন না। কিন্তু তারা জানেন কীভাবে অঙ্ককে প্রয়োগ করতে হয়। ইউরোপে মানুষ সাধারণত কথা কম বলে। তারা যখন অসুস্থ হয়, তখন ডাক্তারের কাছে গিয়ে অর্থ খরচ করে, মানসিক সমস্যার কথা ডাক্তারকে জানায়। অথচ বাংলাদেশে আড্ডার মাধ্যমে অনেক মানসিক চাপ লাঘব করা সম্ভব। সম্প্রতি বাংলাদেশের বড়লোকদের মধ্যেও ইউরোপীয় ধারা দেখা যাচ্ছে। তারা ব্যস্ত জীবনে আড্ডার জন্য সময় বের করতে পারেন না এবং মানসিক সমস্যার সমাধানের জন্য ডাক্তারের শরণাপন্ন হন। আড্ডা শুধুমাত্র বিনোদনের মাধ্যম নয়, বরং এটি সামাজিক ও মানসিক সমস্যার সমাধানের একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। ইউরোপে আড্ডার অভাবের কারণে অনেক সমস্যা অনির্ধারিত থাকে, যা হয়তো আড্ডার মাধ্যমে সহজেই সমাধান করা যেত। বাংলাদেশের আড্ডা সংস্কৃতি আমাদের সামাজিক বন্ধনকে মজবুত করে এবং সমস্যার সমাধানে সাহায্য করে। তবে এই আড্ডা যেন দুর্নীতি মুক্ত থাকে, সেদিকে লক্ষ্য রাখা অত্যন্ত জরুরি। আড্ডার মাধ্যমে তৈরি হওয়া সম্পর্ক এবং সমস্যা সমাধানের উপায়গুলো আমাদের জীবনে অপরিহার্য। ইউরোপের কোলাহলহীন জীবনের চেয়ে আমাদের আড্ডার মধুর সুর আমাদের জীবনে এনে দেয় আনন্দ ও প্রশান্তি। এজন্য আমাদের উচিত এই ঐতিহ্যকে ধরে রাখা এবং এর গুরুত্বকে বোঝা। আড্ডার গুণগত মান বজায় রেখে এটি সমাজে সুস্থ, সুন্দর এবং নৈতিক সংস্কৃতির ধারক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করা উচিত। আড্ডা বাংলার সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও সমস্যার সমাধানে আরো মজবুত হোক, আড্ডাকে অবহেলা নয় বরং ভালোবাসুন।

আরও পড়ুন -
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত