ঢাকা ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১ | বেটা ভার্সন

চাকরির নামে প্রতারণা

জোরালো ও কঠোর ভূমিকা পালন করতে হবে
চাকরির নামে প্রতারণা

দেশে যে হারে শিক্ষিত বাড়ছে, সে হারে কর্মক্ষেত্র বাড়ছে না। ফলে অনেকেই বেকার থেকে যাচ্ছে। চাকরি যেন ‘সোনার হরিণ’ হয়ে দাঁড়িয়েছে। বুকভরা স্বপ্ন নিয়ে পড়ালেখা শেষ হলেও জুটছে না কাঙ্ক্ষিত চাকরি। সেই সুযোগটি নিয়েই গড়ে উঠেছে প্রতারকচক্র। এ ধরনের প্রতারকচক্রগুলো চাকরির নাম করে সহজ-সরল মানুষগুলোর থেকে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। এতে অনেকে উপরি দিতে গিয়ে সর্বস্বান্ত হচ্ছেন। বিশেষ করে ব্যাংক, বিমা, এমএলএম কোম্পানি, বিপণন কোম্পানি, মার্কেটিং কোম্পানির নামে বেশি প্রতারণা করা হচ্ছে। রাজধানীর বিভিন্ন বাসে, জনসমাগম হয় এমন স্থানে চাকরির আকর্ষণীয় বিজ্ঞাপন দেয়া হয়। এতে পার্ট টাইম চাকরির নামে ছাত্রছাত্রীদের প্রতারণার ফাঁদে ফেলা হয়। নিয়োগের নামে তাদের কাছ থেকে জামানত বা অন্যান্য খাতের অর্থ নিয়ে সটকে পড়ে।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, এসব প্রতারক বিভিন্ন পত্রিকায়, বিভিন্ন পরিবহনের পেছনে, রাস্তার দেয়ালে, বিদ্যুতের খুঁটিতে বিজ্ঞাপন দিয়ে বেকার মানুষকে চাকরির লোভ দেখায়। এসব বিজ্ঞাপনে স্বল্প সময়ে আকর্ষণীয় বেতনের লোভনীয় চাকরির অফার থাকে। প্রতারকরা নিজেরাই নিজেদের মতো অফিসার সেজে চাকরির বিজ্ঞাপন দিয়ে থাকে। বিভিন্ন পত্রিকায় বিমানবালা, চিত্রনায়িকা, প্রবাসী ম্যাডাম, ধনাঢ্য ব্যক্তির বাসায় সিকিউরিটি গার্ড, এপিএস নিয়োগসহ নানা ধরনের বিজ্ঞাপন দিয়ে থাকে। এছাড়া গার্মেন্টে চাকরির জন্য প্রশিক্ষণ, প্রশিক্ষণের পরই চাকরি- এ ধরনের বিজ্ঞাপনও দিচ্ছে প্রতারকরা। রাজধানীর মিরপুর, ডেমরা, শ্যামলী, বাড্ডা, মৌচাক, পল্টন ও যাত্রাবাড়ী এলাকায় এ ধরনের প্রতারণা বেশি হচ্ছে বলে জানা গেছে। অনেক ক্ষেত্রে ভুক্তভোগীদের অভিযোগের ভিত্তিতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা প্রতারক চক্রের সদস্যদের আটক করলেও বন্ধ হচ্ছে না প্রতারণা। নানা কৌশলে এ চক্রটি তাদের কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। চক্রের রয়েছে বিভিন্ন সাইনবোর্ডসর্বস্ব অফিস এবং কমিশনভুক্ত একাধিক দালাল। গ্রামাঞ্চল থেকে আসা চাকরি প্রত্যাশীদের সঙ্গে এ চক্রের দালালরা প্রথমে সখ্যতা গড়ে তুলে পরবর্তীতে বিভিন্ন আকর্ষণীয় বেতনে চাকরি দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে অফিসে ডেকে নেয়। এভাবে সহজ সরল মানুষ প্রতারকদের কথায় মুগ্ধ হয়ে তাদের ফাঁদে পড়েন। দুঃখজনক হলো, প্রকাশ্যে এসব অপকর্ম করেও বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই প্রতারক চক্র ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়ে যাচ্ছে। এ ক্ষেত্রে প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পক্ষ থেকে আরো জোরালো ও কঠোর ভূমিকা পালন করা দরকার।

আরও পড়ুন -
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত