ঢাকা ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ | বেটা ভার্সন

দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি

ডিমেও ভোগান্তি

গতকাল রাজধানীর যাত্রাবাড়ী, জুরাইন, শ্যামবাজার ও কারওয়ান বাজার ঘুরে প্রতিবেদনটি করেছেন মো. সাইফ আহমেদ সনি
ডিমেও ভোগান্তি

ঈদুল আজহার পর থেকে রাজধানীসহ সারা দেশে ডিমের বাজার বেশ চড়া। পাইকারি বাজারে যে ডিম সাড়ে ৯ টাকা দরে বিক্রি হয়, খুচরা পর্যায়ে এসে একজন ক্রেতাকে সেই ডিম কিনতে হচ্ছে ১৩ অথবা ১৪ টাকা দরে। খুচরা পর্যায়ে এক হালি ডিম ৫৫ টাকা এবং এক ডজন ১৫৫ থেকে ১৭০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে। ডিমের মূল্যবৃদ্ধির পেছনে পাইকারি বিক্রেতাদের দায়ী করছেন খুচরা বিক্রেতারা। আর পাইকারি বিক্রেতারা বলছেন, ডিমের জোগান কম। এ পরিস্থিতিতে সামর্থ্য না থাকায় খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষ এখন মাছ-মাংস কিনতে পারছেন না। বস্তুত যারা পুষ্টির জন্য ডিমের ওপর নির্ভরশীল, তারা এখন দিশাহারা হয়ে পড়েছেন।

কথা হয় বাজার করতে আসা এক গৃহিণীর সঙ্গে। তিনি বলেন, বাজারে সবকিছুর দাম বেশি। ডিমের হালি যদি ৬০ টাকা হয় তাহলে আমরা কি খাব। সবজির দামও বেশি রাখছে বিক্রেতারা। সাধারণ ক্রেতারা খুব অসহায় হয়ে পড়েছে। রাজধানীর কাপ্তান বাজার ঘুরে দেখা যায়, পাইকারিতে ১০০ ডিম বিক্রি হচ্ছে ১ হাজার ৮০ থেকে ১ হাজার ১০০ টাকা। সেই হিসাবে প্রতি পিস ডিমের মূল্য ১১ টাকার মতো। আর খুচরা বাজারে তা বিক্রি হচ্ছে ১৪ থেকে ১৫ টাকা। যা ঈদের আগেও ডিম প্রতি অন্তত দুই টাকা কম ছিল। তবে হঠাৎ ডিমের দাম বাড়ার কারণ অজানা। পাইকারিতে মূল্যবৃদ্ধির কারণ হিসেবে বিক্রেতারা জানান, চাহিদার তুলনায় বাজারে ডিমের সরবরাহ কম। যে সব কোম্পানি কম দরে বিক্রি করেন তাদের আবার উৎপাদন বা বিক্রি সীমিত। তাছাড়া ডিমের গাড়িতে সিটি কর্পোরেশন করের নামে চাঁদাবাজি, মধ্যস্বত্বভোগী এবং বাজারকেন্দ্রিক ডিম সমিতির নিয়মনীতির বেড়াজালে বাড়ে ডিমের দাম। খুচরা বিক্রেতারা জানান, খরচ বাদে ডিম প্রতি সর্বোচ্চ এক টাকা লাভ করা হয়। এদিকে প্রান্তিক পর্যায়ের খামারিরা কম দামে ডিম বিক্রি করলেও তা সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে না বলে অভিযোগ সাধারণ ক্রেতাদের। হাতবদল আর ফোন কলেই বাড়ে ডিমের দাম।ডিমের দাম বেড়ে যাওয়ার পেছনে বিভিন্ন জায়গার ডিম সমিতিকে দায়ী করেছেন অনেক ব্যবসায়ী এবং সাধারণ ক্রেতারা। তবে ডিম সমিতি এবং পাইকারি বিক্রেতারা বলছেন, হাতবদলেই বেড়ে যায় ডিমের দাম। তেজগাঁও ডিমের আড়তে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ফোন কলের মাধ্যমে ডিমের মূল্য নির্ধারণ করা হয়। কাপ্তান বাজারের একজন পাইকারি ডিম ব্যবসায়ী ফজলু মিয়া বলেন, ‘আমাদের এখানকার একেক ব্যবসায়ীর একেক দামে পাইকারিতে ডিম কেনা। কেউ ৯ টাকা ৬১ পয়সায় ডিম কিনেছেন, কেউ ১০ টাকা আবার কেউবা ১০ টাকা ৫০ পয়সায়। কিন্তু বাজারের সঙ্গে তাল মিলিয়ে সবাই এক রেটে বিক্রি করেছে, যা ডিম সমিতি নির্ধারণ করে দিয়েছে। কাপ্তান বাজারের পাইকারি ডিম ব্যবসায়ী রেজাউল বলেন, ডিম উৎপাদন যেখানে হয় সেখান থেকে একজন সাধারণ ক্রেতার হাতে পৌঁছাতে অন্তত চার থেকে পাঁচটি হাত বদল হয়। মূলত এই কারণেই ডিমের দাম বেড়ে যায়। আমরা যেই ডিম পাইকারি সাড়ে ১০ টাকা বিক্রি করি। দেখা যায় খুচরা পর্যায়ে সেই ডিম ১৪ থেকে ১৫ টাকা বিক্রি হচ্ছে। তাহলে এই যে খুচরা বাজার, এটা নিয়ন্ত্রণ করবে কে? সবাই পাইকারি ব্যবসায়ীদের দোষ দেয়, অথচ আমরা ১০০ ডিমে মাত্র ১০ টাকা লাভ করি। সে জায়গায় দেখা গেছে, খুচরা বাজারে এক হালি ডিমেই ১০-১৫ টাকা লাভ করে। তিনি আরো বলেন, সরকার ডিম স্টোরেজ করতে নিষেধ করেছে। অথচ সেটা হলেই কিন্তু ভালো হতো। আমরা যদি কোল্ডস্টোরেজে ডিম রাখতে পারতাম, তাহলে কিন্তু ডিমের দাম এতো বাড়ত না। বাজারে যখন ডিমের ঘাটতি দেখা দিতো, তখন আমরা সেখান থেকে সাপ্লাই দিতে পারতাম। তেজগাঁও ডিম সমিতির সভাপতি আমান উল্লাহ বলেন, ‘ডিমের মূল্যবৃদ্ধির মূল কারণ চাহিদা অনুযায়ী জোগান কম। বাজারে যত চাহিদা, সেই অনুযায়ী ডিম নেই। এজন্যই ডিমের দাম বাড়তি। ডিম এমন একটা কাঁচা পণ্য, এটা আসলে সিন্ডিকেট করার প্রশ্নই আসে না। আমরা সিন্ডিকেট করে দাম বাড়াই এই অভিযোগ আসলে একেবারেই অযৌক্তিক।

আরও পড়ুন -
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত