ঢাকা ২১ জুলাই ২০২৪, ৬ শ্রাবণ ১৪৩১ | বেটা ভার্সন

অবহেলায় নষ্টের পথে জিমন্যাস্টিকসের সরঞ্জাম

অবহেলায় নষ্টের পথে জিমন্যাস্টিকসের সরঞ্জাম

অযত্ন, অবহেলা আর যথাযথ সংরক্ষণের অভাবে নষ্টের পথে জিমন্যাস্টিকসের কোটি টাকার সরঞ্জামাদি। জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের পুরোনো ভবনের জিমনিশিয়ামে বর্ষকালের ভারি বৃষ্টিতে পানি ঢুকে পড়ায় সরঞ্জামাদি নষ্ট হচ্ছে। যেন দেখার কেউ নেই। জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের পুরোনো ভবনের পেছনের অংশ জিমনিশিয়াম। আয়তনে সুবিশাল হলেও অন্য সুযোগ-সুবিধা একেবারেই সীমিত। আলোর স্বল্পতার পাশাপাশি বাতাস চলাচলও কম। ফলে তীব্র গরমেই জিমন্যাস্টরা অনুশীলন করে থাকেন। এর মধ্যে যোগ হয়েছে বৃষ্টির পানি। কয়েক বছর ধরেই বৃষ্টির পানি জিমনিশিয়ামের ভেতর প্রবেশ করছে। আগে এটা তেমন শঙ্কার কারণ ছিল না। গত দুই বছরে জিমন্যাস্টিকস ফেডারেশন কয়েক কোটি টাকার সরঞ্জাম এনেছে ও ভেন্যু জিমন্যাস্টিকস উপযোগী করেছে। ফলে অনাকাঙ্ক্ষিত বৃষ্টির পানিতে ধীরে ধীরে নষ্টের পথে জিমন্যাস্টিকসের মূল্যবান সরঞ্জামাদি। ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান জামিল বলেন, ‘২০২২ সালে ৬০ লাখ টাকা ব্যয়ে জিমন্যাস্টিকস অনুশীলন উপযোগী করেছি আমরা। আন্তর্জাতিক জিমন্যাস্টিকস ফেডারেশনের সহায়তায় আমরা উন্নত মানের সরঞ্জাম পেয়েছি। এরপরও ট্যাক্স ও আনুষাঙ্গিক ব্যয়ে অনেক অর্থ ব্যয় হয়েছে। অথচ তা স্টোরে রাখতে পারিনি। ক্রীড়া পরিষদের জিমন্যাশিয়ামে অনুশীলনের জায়গাই নেই, সেখানে স্টোরের প্রত্যাশা করা বাহুল্য। তাই কষ্ট করে এখানেই মালামাল রাখি। বৃষ্টির পানিতে এগুলো ভিজছে। এভাবে ভিজতে থাকলে অচিরেই কোটি টাকার সম্পদ নষ্ট হবে।’ ক্রীড়া পরিষদের সচিব আমিনুল ইসলাম দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, ‘আসলে বিষয়টি খুবই দুঃখজনক। আমরা দ্রুততার সঙ্গে কার্যকরী ব্যবস্থা নেয়ার উদ্যোগ গ্রহণ করব।’

আরও পড়ুন -
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত