ঢাকা ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ | বেটা ভার্সন

অহংকার ঝেড়ে ফেলে ‘বিরাট’ সফল কোহলি

অহংকার ঝেড়ে ফেলে ‘বিরাট’ সফল কোহলি

ক’দিন আগেই শেষ হওয়া আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ-২০২৪ এ অম্ল-মধুর অভিজ্ঞতার ভেতর দিয়ে যেতে হয়েছে বিরাট কোহলিকে। আইপিএলে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক হয়ে তিনি গিয়েছিলেন বিশ্বকাপে। কিন্তু বৈশ্বিক টুর্নামেন্টে গিয়েই ব্যর্থতার মুখ দেখতে হয় তাকে। গ্রুপ পর্ব থেকে শুরু করে শেষ আট এবং এরপর সেমিফাইনালেও ব্যাট হাতে নিজের নামের প্রতি সুবিচার করতে পারেননি বিশ্বখ্যাত এই ব্যাটার। তবে পুরো আছরজুড়ে ব্যর্থ হলেও ফাইনালে ভারতের ত্রাতা হয়েছিলেন কোহলি। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে আগে ব্যাট করতে নেমে ভারত দ্রুত কয়েকটি উইকেট হারালেও অপরপ্রান্তে দুর্দান্ত এক ইনিংস খেলেছেন তিনি, তার ৭৬ রানের ইনিংসের সুবাদেই ১৭৫ রানের সংগ্রহ গড়ে ভারত। এরপর ম্যাচ জয়ের পর ফাইনালের ম্যাচসেরাও হয়েছেন তিনি। বিশ্বকাপ জয়ের পর দেশে ফিরে রাজসিক অভ্যর্থনা পেয়েছেন রোহিত শর্মা-কোহলিরা। বিশ্বজয়ী ভারত দেখা করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গেও। সেখানে মোদির উপস্থিতিতেই কোহলি জানিয়েছেন, দলের প্রয়োজনেই নিজের অহংকার ছেড়ে দারুণ একটি ইনিংস খেলতে পেরেছিলেন তিনি। কোহলি বলেন, ‘টুর্নামেন্টে আমি অনেকভাবেই চেষ্টা করছিলাম, কিন্তু কোনো কিছুই ঠিকঠাক করতে পারছিলাম না। তখনই আমার মনে হয়েছে, যখন আপনি কোনো কিছু করতে চাইছেন কিন্তু তা হচ্ছে না, আপনি ভাবছেন যে আমি এটা করতে পারবোই, তখন আপনার মাঝে এক ধরনের অহংকার চলে আসে, দাম্ভিকতা চলে আসে। যখন আপনার মাঝে অহংকার চলে আসবে তখন খেলাটা আপনার চেয়ে দূরে সরে যাবে।’

কোহলি আরো বলেন, ‘তো সেই অহংকার ঝেড়ে ফেলাটা আমার জন্য জরুরী ছিল। আর তাছাড়া অবস্থাটাই ছিল এমন যে দলের জন্য আমাকে আমার অহংকার ছাড়তে হয়েছে। এরপর যখন আমি খেলাটাকে সম্মান করলাম তখন আমি প্রতিদান হিসেবে সম্মানই পেলাম।’ কোচ রাহুল দ্রাবিড়কে কি বলেছিলেন জানিয়ে কোহলি আরও বলেন, ‘আমি রাহুল ভাইকে বলেছিলাম যে, আমি আমার নিজের প্রতি এবং দলের প্রতি সুবিচার করতে পারিনি। তখন উনি আমাকে বলেছেন যে যখন দলের প্রয়োজন হবে তখন তুমি ঠিকই ¤িœজের সেরাটা দিতে পারবে। এরপর যখন ফাইনালের দিন খেলতে গেলাম, তখন রোহিতকে বলেছিলাম যে, আমার মনে হয়না আমি যেভাবে খেলতে চাই সেভাবে আমি খেলতে পারবো।’ এরপর কি হয়েছিল জানিয়ে কোহলি বলেন, ‘কিন্তু যখন ম্যাচটা শুরু হলো, আমি প্রথম চার বলেই ৩টা চার মারলাম, তখন রোহিতকে গিয়ে বলেছি, এটা কেমন খেলা, একদিন মনে হয় ১ রানও হবে না, আরেক দিন সবকিছু একদম ঠিকঠাকভাবে চলতে থাকে।’ কোহলি আরও বলেন, ‘এরপর যখন দ্রুত উইকেট পড়ে গেল তখন আমি বুঝলাম যে আমাকে এই অবস্থার প্রতি আত্মসমর্পণ করতে হবে দলের জন্য। তখন আমি শুধু দলের জন্য যা জরুরী তাই করার চেষ্টা করে গেছি। আমার মনে হয়েছে আমাকে এই অবস্থার ভেতর আনা হয়েছে এবং আমিও তখন শুধু ওই অবস্থার কথাই ভেবেছি। পরে আমি বুঝেছি যে যা হবার তা হবেই। এবং আমার সাথেই এটা হওয়ার কথা ছিল এবং শেষ পর্যন্ত আমরা ম্যাচটা জিতি।’

আরও পড়ুন -
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত