আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ১৮-১১-২০১৯ তারিখে পত্রিকা

মেলার চতুর্থ দিন

আয়কর আদায় ২৮২ কোটি টাকা

নিজস্ব প্রতিবেদক
| শেষ পাতা

- সেবাগ্রহীতা ২,৯২,৫২৫
- রিটার্ন দাখিল ৯২,৯১৬ 
- নতুন টিআইএন নিবন্ধন ৪,৫৬২

‘সবাই মিলে দেব কর, দেশ হবে স্বনির্ভর’Ñ সেøাগানে বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হওয়া দেশব্যাপী আয়কর মেলার চতুর্থ দিন রোববার ২৮২ কোটি টাকার রাজস্ব আদায় হয়েছে। আর চার দিনে মেলায় মোট ১ হাজার ৩৪৬ কোটি টাকার আয়কর সংগ্রহ হয়েছে। জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

মেলা ঘুরে দেখা গেছে, কেন্দ্র্রীয়ভাবে রাজধানীর অফিসার্স ক্লাবসহ দেশব্যাপী আয়োজিত মেলায় সকাল থেকেই ছিল উৎসবের আমেজ। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মেলা প্রাঙ্গণ করদাতাদের মিলন মেলায় পরিণত হয়। জন সমাগমে তিল ধারণের ঠাঁই ছিল না। এবারের মেলার পরিধি গেল বছরের মেলার চেয়ে কয়েকগুণ বৃদ্ধি করা হয়েছে। মেলায় আয়কর রিটার্ন দাখিল, ই-টিআইন গ্রহণ, ই-পেমেন্ট, ই-ফাইলিং, ই-পেমেন্টের ব্যবস্থা রয়েছে।

মেলার চতুর্থ দিন সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে মেলা চলে। এদিন আয়কর সংগ্রহ হয়েছে ২৮২ কোটি ৫৭ লাখ ১০ হাজার ৫৭৯ টাকা। পাশাপাশি ২ লাখ ৯২ হাজার ৫২৫ জন করদাতা সেবা গ্রহণ করেছেন। রিটার্ন দাখিল হয়েছে ৯২ হাজার ৯১৬টি, নতুন ই-টিআইএন নিবন্ধন হয়েছে ৪ হাজার ৫৬২ জন।

এর আগে মেলার তৃতীয় দিন ২৬২ কোটি ২ লাখ ৯২ হাজার ২৫১ টাকা আয়কর সংগ্রহ হয়। পাশাপাশি ২ লাখ ৭১ হাজার ৯৪০ জন করদাতা সেবা গ্রহণ করেন। রিটার্ন দাখিল হয় ৮৪ হাজার ৫৩৪টি, নতুন ই-টিআইএন নিবন্ধন ৪ হাজার ১১ জন। মেলার দ্বিতীয় দিন শুক্রবার আয়কর সংগ্রহ হয়েছে ৪৭৯ কোটি ১ লাখ ২৮ হাজার ৭৯৭ টাকা। এ দিন মেলা প্রাঙ্গণ থেকে সেবা নিয়েছেন ২ লাখ ৬৮ হাজার ৬৮৪ জন। এর মধ্যে রিটার্ন দাখিল করেছেন ৭৩ হাজার ৭৪৩ জন। আর ৩ হাজার ৬০২ জন নতুন ই-টিআইন নিবন্ধন করেছেন। প্রথম দিন বৃহস্পতিবার আয়কর সংগ্রহ হয় ৩২৩ কোটি ১৮ লাখ ৯৩ হাজার ৮৮৫ টাকা। এ দিন মেলা প্রাঙ্গণ থেকে সেবা নেন ১ লাখ ৩৫ হাজার ৭৫৮ জন। এর মধ্যে রিটার্ন দাখিল করেন ৬৩ হাজার ২৭২ জন। আর ৪ হাজার ৩৬৬ জন নতুন ই-টিআইন নিবন্ধন করেন।

সব মিলয়ে মেলার চার দিনে মোট রাজস্ব আদায় ১৩৪৬ কোটি ৮০ লাখ ২৫ হাজার ৫১২ টাকা, সেবা গ্রহণকারী ৯ লাখ ৬৮ হাজার ৯০৭ জন, রিটার্ন দাখিল ৩ লাখ ১৪ হাজার ৫৬৫টি এবং নতুন ই-টিআইএন নিবন্ধন হয়েছে ১৬ হাজার ৫৪১টি। করদাতাদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ ও সাড়ার মধ্য দিয়ে এবছর দেশের ৮টি বিভাগ, ৫৬টি জেলা, ৫৬টি উপজেলাসহ মোট ১২০টি স্থানে আয়কর মেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। রাজধানী ঢাকার মতোই মেলার চতুর্থ দিন সারা দেশে করদাতারা ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে কর প্রদান ও সেবা গ্রহণ করেছেন। মেলায় রিটার্ন দাখিল বুথের পাশাপাশি ই-টিআইএন গ্রহণ, ব্যাংক বুথ, মোবাইল ব্যাংকিং বুথগুলোতে সম্মানিত করদাতা ও সেবাগ্রহীতাদের উপস্থিতি ছিল লক্ষণীয়। মেলার পরিধি গেল বছরের মেলার চেয়ে কয়েকগুণ বৃদ্ধি করা হয়েছে। মেলায় আয়কর রিটার্ন দাখিল, ই-টিআইন গ্রহণ, ই-পেমেন্ট, ই-ফাইলিং, ই-পেমেন্টের ব্যবস্থা রয়েছে। মেলার বিশেষ আকর্ষণ মোবাইল ব্যাংকিং সুবিধা গ্রহণ করে সম্মানিত করদাতাগণ রকেট, নগদ, বিকাশ ও প্রযোজ্য শিওর ক্যাশের মাধ্যমে আয়কর জমা দিতে পারছেন। এছাড়াও করদাতাদের সুবিধার্থে প্রথমবারের মতো মেলার জন্য একটি পূর্ণাঙ্গ ওয়েবসাইট চালু করা হয়েছে। এতে করে করদাতারা মেলায় না এসে ঘরে বসে রিটার্ন দাখিল করতে পারছেন। 
২০১০ সালে দেশে বড় পরিসরে শুরু হয় আয়কর মেলা। প্রতিবছরই বাড়ছে মেলার পরিধি। এনবিআরের তথ্য থেকে জানা যায়, ২০১৪ সালের আয়কর মেলায় রাজস্ব আদায়ের পরিমাণ ছিল ১ হাজার ৬৭৫ কোটি ৩০ লাখ ৭৩ হাজার ৪৫১ টাকা। ২০১৫ সালের মেলায় তা বৃদ্ধি পেয়ে দাঁড়ায় ২ হাজার ৩৫ কোটি ৩২ লাখ টাকায়। ২০১৬ সালের মেলায় রাজস্ব আদায়ের পরিমাণ ছিল ২ হাজার ১২৯ কোটি ৬৭ লাখ টাকারও বেশি। বছরটিতে মেলায় রাজস্ব আদায়ের প্রবৃদ্ধি ৪ দশমিক ৬৩ শতাংশ। ২০১৭ সালের আয়কর মেলায় ২ হাজার ২১৭ কোটি ৩৩ লাখ ১৪ হাজার ২২১ টাকার রাজস্ব আহরণ হয়। বছরটিতে রাজস্ব আদায়ে প্রবৃদ্ধি ৪ দশমিক ১২ শতাংশ। তবে, ২০১৮ সালের মেলা থেকে মোট রাজস্ব আদায় হয়েছে ২ হাজার ৪৬৮ কোটি ৯৪ লাখ ৪০ হাজার ৮৯৫ টাকা। এবারের মেলায় রাজস্ব আহরণের আগের সব রেকর্ড ভেঙে যাবে বলে আশা করছে এনবিআর।