আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ১৮-১১-২০১৯ তারিখে পত্রিকা

আদাবরে গৃহবধূ হত্যার পর স্বামী পলাতক

নিজস্ব প্রতিবেদক
| প্রথম পাতা

নাসিমা ও ডাবলুর মধ্যে পারিবারিক বিরোধ চলছিল। নাসিমার এটি দ্বিতীয় বিয়ে। ডাবলুরও আরও স্ত্রী রয়েছে

রাজধানীর আদাবরের একটি বাসার মেঝে থেকে নাসিমা ওরফে হাসিনা বেগম (৩৬) নামে এক নারীর রক্তাক্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। রোববার এ ঘটনার পর থেকে নিহতের স্বামী ডাবলু হাওলাদার রানা পলাতক। পুলিশের ধারণা, নাসিমাকে হত্যার পর পালিয়ে গেছে স্বামী। 

আদাবর থানা পুলিশ জানায়, সকাল সাড়ে ৮টার দিকে আদাবর-১০ এর ৭১২/১৯/৫৩ নম্বর বাসা থেকে নাসিমার লাশ উদ্ধার করে আদাবর থানা পুলিশ। পরে ময়নাতদন্তের জন্য শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। নিহতের স্বামী ডাবলু হাওলাদার রানা দর্জির কাজ করেন। নাসিমার বাড়ি বাগেরহাটের মোড়লগঞ্জ উপজেলার চরহোগলা গুনিয়ায়। তারা ওই বাসায় ভাড়া থাকতেন। 

ওসি জানান, নাসিমা ও ডাবলুর মধ্যে পারিবারিক বিরোধ চলছিল। নাসিমার এটি দ্বিতীয় বিয়ে। আর ডাবলুর আরও একটি স্ত্রী রয়েছে। পারিবারিক কলহ থেকে ডাবলু নাসিমাকে খুন করে থাকতে পারে। শনিবার রাত ১২টা থেকে রোববার সকাল ৭টার মধ্যে নাসিমা খুন হন। ধারণা করা হচ্ছে বালিশ চাপা দিয়ে তাকে হত্যা করা  হয়েছে। রোববার সকালে স্থানীয়রা খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। সুরতহালের সময় নিহতের নাক ও কানে রক্ত দেখা গেছে। আদাবর থানার ওসি কাজী শাহীদুজ্জামান জানান,  
শনিবার রাতে স্বামী ও দুই সন্তানকে নিয়ে একঘরেই ঘুমিয়েছিলেন নাসিমা। সকাল সাড়ে ৭টার দিকে ঘুম না ভাঙায় ডাকাডাকি শুরু করে বাচ্চারা। তাদের বাবা তখন ঘরে ছিলেন না। মায়ের সাড়া না পেয়ে তারা কান্নাকাটি শুরু করলে প্রতিবেশীরা এসে নাসিমাকে সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনার পর থেকে রানা পলাতক। নাসিমার প্রথম স্বামী মারা যাওয়ার পর প্রায় ৪ বছর আগে রানার সঙ্গে তার বিয়ে হয়। আমরা রানাকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা করছি। তাকে গ্রেপ্তার করতে পারলে খুনের রহস্য উদ্ঘাটন হবে।